সোমবার 11 রবীউল আউওয়াল 1440 - 19 নভেম্বর 2018
বাংলা

দুই ঈদের তাকবীরের শব্দাবলী

প্রশ্ন

প্রশ্ন: ঈদুল আযহার নামাযে মানুষ এভাবে তাকবীর দিয়ে থাকে: “আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু, আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হামদ। আল্লাহু আকবার কাবিরা, ওয়াল হামদুলিল্লাহি কাছিরা। ওয়া সুবহানাল্লাহি বুকরাতান ওয়া আসিলা। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহ। সাদাকা ওয়া’দাহ, ওয়া নাছারা আবদাহ, ওয়া আ’আয্‌যা জুনদাহ, ওয়া হাযামাল আহযাবা ওয়াহদাহ। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ, ওয়া লা না’বুদু ইল্লা ইয়্যাহ মুখলিসিনা লাহুদ দ্বীন; ওয়া লাউ কারিহাল কাফিরুন।” লোকেরা ঈদের নামায আদায়কালে, মসজিদে জামাতে নামায আদায়ের পর এ তাকবীরটি বারবার উচ্চারণ করে থাকে; এ শব্দাবলী কি সহিহ? যদি ভুল হয়; তাহলে শুদ্ধ ভাষা কোনটি?

উত্তর

আলহামদুলিল্লাহ।

“আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার।লাইলাহাইল্লাল্লাহু, ওয়াআল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার,ওয়ালিল্লাল্লাহিলহামদ”—এশব্দাবলীইবনেমাসউদ (রাঃ) ওঅন্যান্যসাহাবীথেকেসাব্যস্তহয়েছে—প্রথমাংশে‘আল্লাহুআকবার’তিনবারবলাহোককিংবাদুইবারবলাহোক।[দেখুন: ইবনেআবিশায়বাএর‘আল-মুসান্নাফ’ (২/১৬৫-১৬৮), ইরওয়াউলগালিল (৩/১২৫)]

পক্ষান্তরে, “আল্লাহুআকবারকাবিরা, ওয়ালহামদুলিল্লাহিকাছিরা, ওয়াসুবহানাল্লাহিবুকরাতানওয়াআসিলা…” এরপ্রসঙ্গে:

ইমামশাফেয়ী (রহঃ) বলেন: কেউযদিএকটুবাড়িয়েবলেন: ‘আল্লাহুআকবারকাবিরা, ওয়ালহামদুলিল্লাহিকাছিরা।ওয়াসুবহানাল্লাহিবুকরাতানওয়াআসিলা।আল্লাহুআকবার।ওয়ালানা’বুদুইল্লাল্লাহমুখলিসিনালাহুদদ্বীন; ওয়ালাউকারিহালকাফিরুন।লাইলাহাইল্লাল্লাহুওয়াহদাহ।সাদাকাওয়া’দাহ, ওয়ানাছারাআবদাহ, ওয়াহাযামালআহযাবাওয়াহদাহ।লাইলাহাইল্লাল্লাহুওয়াআল্লাহুআকবার’—তবেসেটাভাল।[সমাপ্ত; আল-উম্ম (১/২৪১)]

আবুইসহাকআল-সিরাজিতাঁর‘আল-মুহায্‌যাব’নামকগ্রন্থে (১/১২১) বলেন: “কেননানবীসাল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লামসাফাপাহাড়েরউপরএকথাগুলোবলেছিলেন।”[সমাপ্ত]

তাইএবিষয়টিতেপ্রশস্ততাআছে।কারণনবীসাল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লামথেকেতাকবীরপড়ারকথাবর্ণিতআছে।তবে, তাকবীরেরশব্দাবলীতিনিসুনির্দিষ্টকরেননি।আল্লাহতাআলাবলেন: “তোমাদেরহেদায়েতদানকরারদরুন‘আল্লাহুআকবার’ (আল্লাহবড়) বলেতাকবীরদাও”।[সূরাবাকারা, আয়াত: ১৮৫] তাইযেকোনশব্দেতাকবীরদেয়াহোকনাকেনএতেইসুন্নাহপালনহবে।

সানআনী (রহঃ) বলেন: আস-শারহগ্রন্থেবেশকিছুইমামথেকেতাকবীরেরঅনেকপদ্ধতিউল্লেখকরাহয়েছে।এতেপ্রমাণপাওয়াযায়যে, এবিষয়টিপ্রশস্তএবংআয়াতেরব্যাপকতারদাবীওএটাই।”[সমাপ্ত]

[সুবুলুসসালাম (২/৭২)]

ইবনেহাবীব (রহঃ) বলেন: “আমারকাছেপ্রিয়তাকবীরহচ্ছে- আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, লাইলাহাইল্লাল্লাহু, ওয়াআল্লাহুআকবার, ওয়ালিল্লাহিলহামদআলামাহাদানা।আল্লাহুম্মাজাল-নালাকামিনাশশাকিরীন”।আসবাগ (রহঃ) আরেকটুবাড়িয়েবলতেন: “আল্লাহুআকবারকাবিরা, ওয়ালহামদুলিল্লাহিকাছিরা, ওয়াসুবহানাল্লাহিবুকরাতানওয়াআসিলা, ওয়ালাহাওলাওয়ালাকুয়্যাতাইল্লাবিল্লাহ।তিনিআরওবলেন: ‘আপনিযদিআরওকিছুবাড়ানকিংবাকমানঅথবাঅন্যকিছুবলেনএতেকোনসমস্যানেই।’[সমাপ্ত; [ইকদুলজাওয়াহেরআস-ছামিনা (৩/২৪২)]

সাহনূন (রহঃ) বলেন: আমিইবনুলকাসিমকে (রহঃ) জিজ্ঞেসকরলাম, মালেক (রহঃ) কিআপনাদেরকেতাকবীরেরকোনপদ্ধতিবলেছেন? তিনিবলেন: না।তিনিআরওবলেন: মালেক (রহঃ) এবিষয়গুলোঐভাবেসুনির্দিষ্টকরতেননা।”[সমাপ্ত; [আল-মুদাওয়ানা (১/২৪৫)]

ইমামআহমাদ (রহঃ) বলেন: “এবিষয়টিপ্রশস্ত।”ইবনুলআরাবী (রহঃ) বলেন: “আমাদেরআলেমগণযেকোনভাষায়তাকবীরবলারমতগ্রহণকরেছেন।কুরআনেরবাহ্যিকভাবওএটাই।আমিওএইঅভিমতেরপ্রতিঅনুরক্ত।[আল-জামেলিআহকামিলকুরআন (২/৩০৭)]

অন্যান্যসলফেসালিহীনথেকেসাব্যস্তঈদেরতাকবীরেরভাষাগুলোহচ্ছে-

আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, ওয়ালিল্লাহিলহামদ, আল্লাহুআকবারওয়াআজাল্ল।আল্লাহুআকবারআলামাহাদানা”[সুনানেবায়হাকী (৩/৩১৫) তেইবনেআব্বাস (রাঃ) থেকেবর্ণিতহাদিস; আলবানীহাদিসটিকে‘ইরওয়াউলগালিল’গ্রন্থে (৩/১২৬) সহিহবলেছেন]

ইবনেহাজার (রাঃ) বলেন: তাকবীরেরব্যাপারেসর্বাধিকসহিহযেবর্ণনাটিএসেছেসেটিসালমান (রাঃ) থেকেসহিহসনদেআব্দুররাজ্জাকসংকলনকরেছেন।তিনিবলেন: তোমরাআল্লাহরবড়ত্বঘোষণাকর।আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবার, আল্লাহুআকবারকাবিরা।

[ফাতহুলবারী (২/৪৬২)]

এবিষয়েসাহাবীদেরথেকেযেবাণীগুলোবর্ণিতহয়েছেসেগুলোদিয়েআমলকরাশ্রেয়।

আল্লাহইভালজানেন।

আরওজানতেদেখুন: 36442প্রশ্নোত্তর।

সূত্র: ইসলাম জিজ্ঞাসা ও জবাব

মতামত প্রেরণ